শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ১২:৩১ অপরাহ্ন

ঘোষনা :
  সম্পূর্ণ আইন বিষয়ক  দেশের প্রথম দৈনিক পত্রিকা   দৈনিক ইন্টারন্যাশনাল এর  পক্ষ থেকে সবাইকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা   । 
সংবাদ শিরোনাম :
স্বেচ্ছায় যৌনকর্ম করা কী অপরাধ? মা দিবসে মায়েদের নিয়ে ইবি রোটার‍্যাক্ট ক্লাবের ক্রীড়া ও ফল উৎসব নারী শিশু আইনে মিথ্যা মামলায় জামিন ও মুক্তির উপায়! ইবিতে ‘প্লান্ট সাইন্স’ বিষয়ক আন্তর্জাতিক সেমিনার  শিক্ষক-শিক্ষার্থী বিনিময় করবে ইবি এবং তুরস্কের ইগদির বিশ্ববিদ্যালয় চেকের মামলায় সাফাই সাক্ষী বনাম আসামীর নির্দোষিতা! খোকসার জনগনের সাথে ব্যাস্ত সময় কাটাচ্ছেন উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী বাবুল আখতার। খোকসার জনগনের সাথে ব্যাস্ত সময় কাটাচ্ছেন উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী বাবুল আখতার। কুমারখালীতে মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে দুইজন নিহত। ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশের নিকট দোষস্বীকারে সাক্ষ্যগত মূল্য বনাম বাস্তবতা!
উইল বা অছিয়ত কে, কাকে, কখন, কিভাবে, কতটুকু, কেন করতে পারেন?

উইল বা অছিয়ত কে, কাকে, কখন, কিভাবে, কতটুকু, কেন করতে পারেন?

 

এডভোকেট সিরাজ প্রামাণিক:
উইল অর্থ ইচ্ছা। উইল হলো একটি আইনগত ঘোষণা। এই আইনগত ঘোষণার মাধ্যমে ঘোষণাকারী তার সম্পত্তি সম্পর্কিত কোনো ইচ্ছা বা বাসনা তার মৃত্যুর পর পূরণ হোক এটা প্রকাশ করে। ‘উইল হলো এমন একটি দলিল, যা দ্বারা কোনো ব্যক্তি তার সম্পত্তির এমন বিলিব্যবস্থা করতে পারে, যা উইলকারীর মৃত্যুর পর কার্যকরযোগ্য।’ যে উইল করে তাকে উইলকারী এবং যার নামে উইল করা হয় তাকে উইল-গ্রহীতা বলা হয়।
নাবালক নয়, এমন প্রত্যেক সুস্থ মস্তিষ্কের হিন্দু ব্যক্তি উইল এবং মুসলমানেরা অছিয়তের মাধ্যমে সম্পত্তি হস্তান্তর করতে পারে।
১. একজন বিবাহিত রমণী তার উপার্জিত সম্পত্তি উইল করতে পারে।
২. অন্ধ, বোবা ও বধির ব্যক্তি উইলের মর্ম অবগত হতে পারলেও উইল করতে পারবে না।
৩. সাময়িকভাবে অপ্রকৃতস্থ ব্যক্তি যখন সুস্থমনা থাকে তখন উইল করতে পারে।
৪. উইল প্রতারণা, বল প্রয়োগের দ্বারা করা হলে তা বাতিল বলে গণ্য হবে। উইলকারী যে কোনো সময় উইল রদ ও পরিবর্তন করতে পারে এবং সর্বশেষ উইল কার্যকর বলে গণ্য হবে।
উত্তরাধিকারিত্ব আইনানুসারে উইলটি অবশ্যই লিখিত দলিল দ্বারা হতে হবে এবং উইলকারী কমপক্ষে দুইজন সাক্ষীর সম্মুখে দলিলের সব বিষয় অবগত হয়ে তাতে স্বাক্ষর করবেন। দুইজন বা এর অধিক প্রত্যয়নকারী হিসেবে উইলে স্বাক্ষর করবেন।
মনে রাখবেন, যে সম্পত্তি কোন জীবিত ব্যক্তির অনুকূলে দানের মাধ্যমে হস্তান্তরযোগ্য নয় তা উইল করা যাবে না। স্ত্রী বা অন্য কারো ভরণপোষণের অধিকার বঞ্চিত করার জন্য কোন সম্পত্তি উইল করা যাবে না।
অনেকে দান ও উইলের মধ্যে পার্থক্য নির্নয় করতে পারে না। মূলতঃ দানপত্র সম্পাদিত হওয়ার পর তা আর প্রত্যাহার করা যায় না। কিন্তু উইল বা ইচ্ছাপত্র বা অছিয়ত যতবার খুশী প্রত্যাহার করা যায়। দানপত্র সম্পাদিত হওয়ার পর তা কার্যকর হয়। কিন্তু উইল কার্যকর হয় উইলকারীর মৃত্যুর পর। স্থাবর সম্পত্তি দানপত্রের ক্ষেত্রে তা রেজিস্ট্রি করে দিতে হয়। কিন্তু উইলের ক্ষেত্রে এরুপ কোনো বাধ্যবাধকতা নেই। দানপত্রের ক্ষেত্রে কোনো বিধবার স্বামীর নিকট থেকে প্রাপ্ত সম্পত্তির কিছু অংশ স্বামীর মঙ্গলের জন্য ধর্মীয় কাজে দান করতে পারেন। কিন্তু স্বামীর সম্পত্তির কোন অংশ উইল করতে পারে না। মনে রাখবেন উইলদাতার মোট সম্পত্তি হতে নিম্নরুপ পরিশোধের পর অবশিষ্ট সম্পত্তি নিট সম্পত্তি বলে গণ্য হবে, উইল সর্বদা নিট সম্পত্তির উপর প্রযোজ্য হবেঃ
(ক) উইল দাতার মৃত্যুর অব্যবহিত ৩ মাস পূর্বের ভৃত্য বা চাকরের পাওনাদি।
(খ) মৃত্যু শয্যাকালীন খরচাদি।
(গ) মৃত্যুর দাহ খরচ।
(ঙ) উইল প্রবেট এবং সাকসেশন সার্টিফিকেট ব্যয়।
(চ) ঋণ পরিশোধ (আগের ঋণ আগে পরিশোধ ভিত্তিতে)।

মনে রাখবেন, একই সম্পত্তি নিয়ে একাধিক উইল করা হলে সর্বশেষ উইলটি সর্বপ্রথম কার্যকরী হবে এবং সম্পত্তি অবশিষ্ট থাকা সাপেক্ষে পরবর্তী উইলগুলো কার্যকরী হবে। অজাত ব্যক্তি উইলের তারিখ হতে ৬ মাসের মধ্যে জন্মগ্রহণ করলে তার বরাবরে করা উইল বৈধ হবে। উইল মৌখিক ও লিখিত দু’ভাবেই করা যায়। এমনকি অসামর্থ্যের কারণে ইঙ্গিতেও করা যায়। তবে মৌখিক উইলের ক্ষেত্রে ২ জন পুরুষ বা ১ জন পুরুষ ও ২ জন মহিলা সাক্ষীর উপস্থিতিতে হতে হবে। নাবালক উত্তরাধিকারী সাবালকত্ব লাভের পর উইলে সম্মতি দিতে পারবেন। উইল দাতা মৃত্যুর পূর্বে যে কোন সময় উইল বাতিল করতে পারেন। সম্পত্তি একবার উইল করার পর পূণরায় তা অন্য কারো অনুকূলে উইল করলে পূর্বের উইলটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে বাতিল হয়ে যাবে। উইল বাতিলের জন্য মামলার প্রয়োজন হয় না। হিন্দু আইন অনুসারে একজন হিন্দু তার সকল সম্পত্তি উইল করতে পারেন, তবে যাদের ভরণপোষণের জন্য তিনি আইনত বাধ্য তাদের জন্য উপযুক্ত ব্যবস্থা রেখে বাঁকী সম্পত্তি উইল করতে হবে। উইলকারীর কোন উত্তরাধিকারী না থাকলে তিনি তার সমস্ত সম্পত্তি যে কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের নামে উইল করে দিতে পারেন। উইল গ্রহণকারীকে দাতার মৃত্যুর সময় জীবিত থাকতে হবে। উইলকারী মৃত্যুর মুহূর্ত হতে উইল কার্যকর হবে।

যে সকল কারণে একটা উইল বাতিল বা বিলুপ্ত হতে পারে, তার মধ্যে রয়েছে- (১) উইলের পর উইলদাতা বিকৃত মস্তিষ্ক হলে, মৃত্যুর পূর্বে তিনি সুস্থ হলেও, (২) উইল গ্রহীতা দাতার আগে মারা গেলে, (৩) উইল দাতা বা গ্রহীতা ধর্ম ত্যাগ করলে, (৪) উইল গ্রহীতা দাতাকে হত্যা করলে, (৫) উইলকৃত সম্পত্তির উপর অন্য কারো অধিকার সাব্যস্ত হলে, (৬) উইলকারী উইলকৃত সম্পত্তি বিক্রি বা দান করলে বা তাতে বাড়ি তৈরি করলে।

উইলের মাধ্যমে কোন ব্যক্তি তার জীবদ্দশায় কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের নামে তার সম্পত্তি উইল করে গেলে উইলটি বাস্তবায়নের জন্য সংশ্লিষ্ট দেওয়ানি আদালতের অনুমোদন বা জুডিসিয়াল কনফার্মেশন লাগবে, এরূপ অনুমোদন নেয়াকেই উইল প্রবেট বলে। প্রবেটের জন্য আদালতে আবেদন করা হলে অন্যান্য ওয়ারিশদের মতামত জানার জন্য আদালত হতে নোটিশ দেয়া হয়, এ সময় ওয়ারিশগণ উইলের বিরুদ্ধে অসম্মতি জানাতে পারেন। এছাড়া আদালত কালেক্টরের নিকট সম্পত্তির কোর্ট ফি সঠিক আছে কি-না, সম্পত্তিটি সরকারের কিনা, সম্পত্তিটি উইলদাতার কিনা এতে আর কারো স্বার্থ আছে কিনা ইত্যাদি আদালত জানতে চেয়ে থাকতে পারেন।

উইল এবং অছিয়ত হল একমাত্র দলিল যা রেজিষ্ট্রি করার প্রয়োজন পড়ে না, রেজিস্ট্রেশন আইনের ১৮ ধারামতে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

লেখকঃ বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী, আইনগ্রন্থ প্রণেতা ও আইন গবেষক। ই-মেইলঃ seraj.pramanik@gmail.com, মোবাইলঃ ০১৭১৬-৮৫৬৭২৮

 

এই সংবাদ টি সবার সাথে শেয়ার করুন




দৈনিক ইন্টারন্যাশনাল.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  © All rights reserved © 2018 dainikinternational.com
Design & Developed BY Anamul Rasel