বুধবার, ২০ জানুয়ারী ২০২১, ০৭:৩৪ অপরাহ্ন

ঘোষনা :
  সম্পূর্ণ আইন বিষয়ক  দেশের প্রথম দৈনিক পত্রিকা   দৈনিক ইন্টারন্যাশনাল এর  পক্ষ থেকে সবাইকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা   । 
সংবাদ শিরোনাম :
জমি-জমার জাল দলিল সনাক্তকরণের উপায় ও জাল দলিল বাতিলের নিয়মাবলী কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ নির্মাণে পুকুর চুরি।। কাজ যেনো শেষ হবার নয়! আইনে কোর্ট ম্যারেজ বলে কিছু নেই# চলছে প্রতারণা! পারিবারিক আদালতে কেন, কখন, কিভাবে যাবেন ও সমাধান নিবেন কুষ্টিয়াস্থ খোকসা ওয়েলফেয়ার এ্যাসোসিয়েশনের শীতবস্ত্র বিতরণ মুসলিম আইনে একজন মৃত ব্যক্তির সম্পত্তি কে কতটুকু পাবেন কুষ্টিয়া আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে আমেজ শুরু# নতুন মুখ চায় সাধারণ আইনজীবীগণ তালাকের পর কিভাবে তালাক প্রত্যাহার করবেন বিচারকার্যে বিচারকের স্বেচ্ছাধীন ক্ষমতা মোটেও স্বেচ্ছাচারী নয়! কিভাবে জমির রেকর্ড সংশোধনে মোকদ্দমা ও ভোগান্তি থেকে রক্ষা পাবেন!


একজন নারী কখন, কিভাবে তার স্বামীকে তালাক দিতে পারে!

একজন নারী কখন, কিভাবে তার স্বামীকে তালাক দিতে পারে!

এ্যাডভোকেট সিরাজ প্রামাণিক

তালাক প্রদানের উদ্দেশ্য হল অন্যায়, জুলুম ও নিদারুন কষ্ট, জ্বালাতন ও উৎপীড়ন ইত্যাদি অশান্তি হতে মুক্তি লাভ করা। কোনো স্ত্রী যদি উপরোক্ত যুক্তিসংগত কারণে স্বামীকে তালাক দিতে চান, সে ক্ষমতা প্রচলিত আইনে স্ত্রীর রয়েছে।

মনে রাখবেন, যখন বিয়ে হয় বিয়ের সময় বিয়ের কাবিননামার ১৮ ও ১৯ নম্বর দুটি কলাম রয়েছে। সেখানে বলা আছে যে, স্বামী তার স্ত্রীকে তালাক প্রদানের ক্ষমতা অর্পন করেছে কি-না এবং স্ত্রী তার স্বামীকে তালাক প্রদানের ক্ষমতা অর্পণ করেছে কি-না। সেখানে যদি স্ত্রীর ঘরটিতে হ্যাঁ থাকে তাহলে তিনি সহজেই তার স্বামীকে তালাক দিতে পারবেন। এ তালাককে তালাক-ই-তাওফিজ বলে। তবে কিছু বিধি-বিধান মানতে হয়। ১৯৬১ সালের মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশ এর ৭ ধারার বিধান মতে,

১. স্ত্রী কর্তৃক স্বামীকে তালাক ঘোষণার পর তালাক দিয়াছে বলে যথাশীঘ্রই সম্ভব স্থানীয় ইউপি/পৌর/সিটি কর্পোরেশনের চেয়ারম্যানকে লিখিতভাবে তালাকের নোটিশ দিতে হবে এবং স্বামীকে উক্ত নোটিশের নকল প্রদান করতে হবে। তবে এ কাজটি রাষ্ট্রীয় ডাকযোগে এডি সহযোগে প্রদান করাই সবচেয়ে উত্তম পদ্ধতি।
২. মনে রাখবেন, যে পক্ষ থেকেই তালাক প্রদান করা হোক না কেন উপরের ১ নং পয়েন্টের বিষয়াদি লংঘন করলে সেই পক্ষ এক বৎসর পর্যন্ত বিনাশ্রম কারাদন্ডে বা দশ হাজার টাকা পর্যন্ত অর্থদন্ডে কিংবা উভয় প্রকার দন্ডে দন্ডিত হইবে।
৩. চেয়ারম্যান সাহেবের নোটিশ প্রাপ্তির তারিখ হতে নব্বই দিন অতিবাহিত না হওয়া পর্যন্ত তালাক কার্যকর হবে না।
৪. মনে রাখবেন, উপরের ১ নং পয়েন্ট অনুযায়ী নোটিশ প্রাপ্তির ত্রিশ দিনের মধ্যে চেয়ারম্যান সংশ্লিষ্ট পক্ষদ্বয়ের মধ্যে আপোষ বা সমঝোতা সৃষ্টির উদ্দেশ্যে সালিশী পরিষদ গঠন করবে এবং উক্ত সালিশী পরিষদ এ জাতীয় সমঝোতার (পুনর্মিলনের) জন্য প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থায় অবলম্বন করবে। জেনে রাখা ভাল যে, চেয়ারম্যান কর্তৃক আপোষের জন্য এ ধরণের নোটিশ না করলেও কিংবা কোন পদক্ষেপ না নিলেও ৯০ দিন অতিক্রান্ত হলেই তালাক কার্যকর হয়ে যাবে।

৫. তালাক ঘোষণাকালে স্ত্রী গর্ভবতী থাকলে বা অন্তঃসত্ত্বা থাকলে উল্লেখিত সময় অথবা গর্ভাবস্থা-এ দুইটির মধ্যে দীর্ঘতরটি অতিবাহিত না হওয়া পর্যন্ত তালাক কার্যকর হবে না।

উপরোক্ত তালাক-ই-তাওফিজ মতে তালাক ছাড়াও মুসলিম আইনে নারীদের হাতে তালাকের আরও তিনটি পথ খোলা আছে। ক. ‘খুল’ বা ‘খুলা’ তালাক, খ. মুবারাত এবং গ. আদালতের মাধ্যমে বিচ্ছেদ।

খুলা তালাকে স্বামী এবং স্ত্রী উভয়ের সম্মতির ভিত্তিতে বিবাহ বিচ্ছেদ হয়ে থাকে। উল্লেখ্য, এই ধরনের তালাকে বিবাহ বিচ্ছেদের জন্য স্ত্রী তার স্বামীকে ক্ষতিপূরণ দিয়ে থাকে। সাধারণত ক্ষতিপূরণ হিসেবে স্ত্রী তার আর্থিক দাবির (যেমন দেনমোহর-খোরপোষ) কোনো অংশ ত্যাগ করে এবং তখন স্বামী তালাক দেয়ার মাধ্যমে স্ত্রীকে বিবাহবন্ধন থেকে মুক্ত করে দেয়। তবে এ তালাকের উল্লেখযোগ্য দিক হলো-১। স্ত্রী স্বামীকে তালাক দেওয়ার প্রস্তাব দিয়ে থাকেন, ২। স্বামী ওই প্রস্তাবে সম্মতি জানিয়ে থাকেন, ৩। স্ত্রীকে তালাক দেওয়ার সময় স্বামী বিনিময়ে স্ত্রীর কাছ থেকে প্রতিদান নিয়ে থাকেন এবং স্ত্রী তা দিয়ে থাকেন বা দিতে সম্মত হন। তবে খোলা তালাকের ক্ষেত্রে অন্য কোনো চুক্তি না থাকলে স্ত্রী মোহরানা পাওয়ার অধিকারী হবেন না। খুলা তালাকের ক্ষেত্রে অনেক সময় স্বামী রাজী হয় না। তখন আদালত তালাকের নির্দেশ দিতে পারে।

মুবারাত হলো পারস্পরিক সম্মতির ভিত্তিতে বিবাহ বিচ্ছেদ। এ ধরনের বিবাহ বিচ্ছেদের বেলায় উভয়ই বিবাহ বিচ্ছেদে সম্মত হয় বলে কাউকে কোনো ক্ষতিপূরণ দেয়া লাগে না। ।

প্রচলিত মুসলিম আইনে বিবাহ বিচ্ছেদের বেলায় স্বামী-স্ত্রীর অসাম্য দূর করার জন্য ১৯৩৯ সালে পাস করা হয় মুসলিম বিবাহ বিচ্ছেদ আইন।

আদালতের মাধ্যমে বিচ্ছেদ। নিম্নের কারণগুলো উদ্ভব হলে। যা মুসলিম বিবাহ বিচ্ছেদ আইন, ১৯৩৯ এর ধারা-২ এ উল্লেখ রয়েছে।
১. চার বৎসর পর্যন্ত স্বামী নিরুদ্দেশ থাকলে।
২. দুই বৎসর স্বামী স্ত্রীর খোরপোষ দিতে ব্যর্থ হলে।
৩. স্বামীর সাত বৎসর কিংবা তার চেয়েও বেশী কারাদন্ড হলে।
৪. স্বামী কোন যুক্তিসংগত কারণ ব্যতীত তিন বছর যাবৎ দাম্পত্য দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হলে।
৫. বিয়ের সময় পুরষত্বহীন থাকলে এবং তা মামলা দায়ের করা পর্যন্ত বজায় থাকলে।
৬. স্বামী দুই বৎসর ধরে পাগল থাকলে অথবা কুষ্ঠ ব্যাধিতে বা মারাত্মক যৌন ব্যধিতে আক্রান্ত থাকলে।
৭. বিবাহ অস্বীকার করলে। কোন মেয়ের বাবা বা অভিভাবক যদি ১৮ বছর বয়স হওয়ার আগে মেয়ের বিয়ে দেন, তা হলে মেয়েটি ১৯ বছর হওয়ার আগে বিয়ে অস্বীকার করে বিয়ে ভেঙ্গে দিতে পারে, তবে যদি মেয়েটির স্বামীর সঙ্গে দাম্পত্য সর্ম্পক (সহবাস) স্থাপিত না হয়ে থাকে তখনি কোন বিয়ে অস্বীকার করে আদালতে বিচ্ছেদের ডিক্রি চাইতে পারে।
৮. স্বামী ১৯৬১ সনের মুসলিম পারিবারিক আইনের বিধান লংঘন করে একাধিক স্ত্রী গ্রহণ করলে।
৯. স্বামীর নিষ্ঠুরতার কারণে।

উপরে যে কোন এক বা একাধিক কারণে স্ত্রী আদালতে বিয়ে বিচ্ছেদের আবেদন করতে পারে। অভিযোগ প্রমাণের দায়িত্ব স্ত্রীর। প্রমাণিত হলে স্ত্রী বিচ্ছেদের পক্ষে ডিক্রি পেতে পারে, আদালত বিচ্ছেদের ডিক্রি দেবার পর সাত দিনের মধ্যে একটি সত্যায়িত কপি আদালতের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যানের কাছে পাঠাবে। ১৯৬১ সনের মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশ অনুযায়ী চেয়ারম্যান নোটিশকে তালাক সংক্রান্ত নোটিশ হিসেবে গণ্য করে আইনানুযায়ী পদক্ষেপ নিবে এবং চেয়ারম্যান যেদিন নোটিশ পাবে সে দিন থেকে ঠিক নব্বই দিন পর তালাক চূড়ান্তভাবে কার্যকর হবে।

লেখকঃ বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী, আইনগ্রন্থ প্রণেতা, সম্পাদক-প্রকাশক ‘দৈনিক ইন্টারন্যাশনাল’। মোবাইলঃ ০১৭১৬-৮৫৬৭২৮, ইমেইলঃ seraj.pramanik@gmail.com

এই সংবাদ টি সবার সাথে শেয়ার করুন




দৈনিক ইন্টারন্যাশনাল.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  © All rights reserved © 2018 dainikinternational.com
Design & Developed BY Anamul Rasel