রবিবার, ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৪:২৯ অপরাহ্ন

ঘোষনা :
  সম্পূর্ণ আইন বিষয়ক  দেশের প্রথম দৈনিক পত্রিকা   দৈনিক ইন্টারন্যাশনাল এর  পক্ষ থেকে সবাইকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা   । 
সংবাদ শিরোনাম :


প্রথম মামলা হলো ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে

প্রথম মামলা হলো ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে

স্টাফ রিপোর্টার: মেডিকেল কলেজের ভর্তি পরীক্ষার ভুয়া প্রশ্নপত্র ফাঁসকারী গ্রেফতারকৃত পাঁচজনের বিরুদ্ধে পল্টন থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করা হয়েছে।  রাজধানীর মালিবাগে সিআইডি প্রধান কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বৃহস্পতিবার এসব তথ্য জানান সিআইডির অর্গানাইজড ক্রাইমের বিশেষ পুলিশ সুপার মোল্লা নজরুল ইসলাম।

মামলায় অভিযুক্তরা হলো, পিরোজপুরের ভাণ্ডারিয়ার কালাম গাজীর ছেলে কাউসার গাজী (১৯), চাঁদপুরের মতলবের জাকির হোসেনের ছেলে সোহেল মিয়া (২১), মাদারীপুরের কালকিনির হাসানুর রশীদের ছেলে তারিকুল ইসলাম শোভন (১৯), নওগাঁর পত্নীতলার আলমের ছেলে রুবাইয়াত তানভির (আদিত্য), টাঙ্গাইলের কালিহাতীর আনসার আলীর ছেলে মাসুদুর রহমান ইমন।

নজরুল ইসলাম বলেন, এই প্রশ্ন ফাঁসকারী প্রতারণা চক্রের মাস্টার মাইন্ড কাউসার গাজীকে আটক করে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে জানায়, বর্তমানে তারা প্রশ্ন ফাঁস করতে পারছেনা। তাই নিজেদের মতন করে প্রশ্ন তৈরি করে বিভিন্ন ফেসবুক ফেক আইডি ব্যবহার করে শতভাগ নিশ্চয়তা দিয়ে শিক্ষার্থীদের কাছে বিক্রি করে আসছিলো।

তারা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সিআইডিকে আরো জানান, তারা দীর্ঘদিন যাবত এই প্রশ্নপত্র ফাঁসের কাজ করে আসছে। কিন্তু এইবার প্রশাসনের তৎপরতার কারণে তারা প্রশ্নপত্র ফাঁস করতে পারেনি। কিন্তু ভুয়া প্রশ্নপত্র তৈরি করে ১০ টি ফেক ফেসবুক অ্যাকাউন্ট’র মাধ্যমে মেডিকেলের প্রশ্ন পাওয়া যাচ্ছে বলে প্রচারণা চালায়।

গ্রেপ্তারকৃতদের বরাত দিয়ে মোল্লা নজরুল জানান, তারা বিভিন্ন সাজেশন বই, বিগত বছরগুলোর প্রশ্নপত্র একত্রে করে এই ভুয়া প্রশ্নপত্র তৈরি করে। এই ভুয়া প্রশ্নপত্র কতিপয় ব্যক্তির ফেসবুক অ্যাকাউন্টে প্রচারণা চালানোর অভিযোগে সিআইডির অর্গানাইজড ক্রাইম টিম বুধবার ৭টার দিকে রাজধানীর কাজলাপার, দনিয়া, যাত্রাবাড়ীতে অভিযান চালিয়ে দুটি মোবাইল ও একটি বিকাশ রেজিস্টারসহ দুজনকে গ্রেফতার করে। এছাড়া একই দিন গোপন তথ্যের ভিত্তিতে রাত ৯টার দিকে বাড্ডা এলাকায় বিশেষ অভিযান চালিয়ে বাড্ডা থানাধীন আলিফনগর এলাকা থেকে তিনজনকে তিনটি মোবাইল ও দুটি ল্যাপটপসহ গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় আসামিদের কাছ থেকে পাঁচটি মোবাইল, দুটি ল্যাপটপ ও বিকাশের বিন রেজিস্টার উদ্ধার করা হয়।

মামলার তদন্ত বিষয়ে বিশেষ পুলিশ সুপার বলেন, এই মামলাটি তদন্তাধীন আছে। আমরা আশা করি প্রতারক চক্রের আরো বেশ কিছু সদস্যকে গ্রেপ্তার করতে পারবো।

 

 

 

 

 

 

 

 

এই সংবাদ টি সবার সাথে শেয়ার করুন




দৈনিক ইন্টারন্যাশনাল.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  © All rights reserved © 2018 dainikinternational.com
Design & Developed BY Anamul Rasel