শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:৪৬ পূর্বাহ্ন

ঘোষনা :
  সম্পূর্ণ আইন বিষয়ক  দেশের প্রথম দৈনিক পত্রিকা   দৈনিক ইন্টারন্যাশনাল এর  পক্ষ থেকে সবাইকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা   । 


পণ্য ক্রেতা হিসেবে আপনার যত আইনী অধিকার

পণ্য ক্রেতা হিসেবে আপনার যত আইনী অধিকার

 

এ্যাডভোকেট সিরাজ প্রামাণিক:

আপনি যদি কোন কিছু কেনা-বেচা করতে গিয়ে প্রতারণার শিকার হন কিংবা অনলাইন কেনা বেচায় ঠকবাজের শিকার হন, তাহলে আপনি কিভাবে প্রতারণার হাত থেকে রক্ষা পাবেন, এর জন্য আপনার কোথায় যেতে হবে, কি করতে হবে, ক্রেতা বা বিক্রেতার কী আইনি অধিকার আছে এসব বিষয়ে আইনী আলোচনায় আজকের নিবন্ধ।

আপনি যে ধরণের প্রতারণার শিকার হয়েছেন-সে বিষয়ে সুনির্দিষ্ট তথ্য প্রমাণ সংগ্রহ করুন। এরপর পণ্য কেনা বা হাতে পাওয়ার তারিখ হতে ত্রিশ দিনের মধ্যে সুনির্দিষ্টভাবে ভোক্তা সংরক্ষণ অধিদপ্তরে অভিযোগ করুন। ১৮৭২ সালের কনট্রাক্ট আইনে প্রতিকার পেতে পারেন। অথবা সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ক্ষতিপূরণ চেয়েও মোকদ্দমা করতে পারেন আদালতে। প্রতারণার মামলাও করতে পারেন।

একটা পণ্য দেখিয়ে অন্য পণ্য দিলে সে ক্ষেত্রে সেল অব গুডস অ্যাক্ট আছে। সেখানে বলা আছে, কোনো পণ্য বিক্রির পর যদি তার সঙ্গে না মেলে তা অবশ্যই অপরাধ। কিন্তু ভোক্তা সংরক্ষণ অধিদপ্তরে অভিযোগ করাটা সবচেয়ে কার্যকর পদক্ষেপ। আপনি ভোক্তা অধিকারের কার্যালয়ে গিয়ে অথবা ওয়েবসাইটে দেওয়া মেইলের মাধ্যমে অভিযোগ করতে পারবেন। সেই অভিযোগের পরে ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তর অনলাইন প্রতিষ্ঠান ও অভিযোগকারীর কাছে পোস্টাল রশিদের মাধ্যমে চিঠি পাঠাবেন। দুই পক্ষ থেকে শুনানি শেষে অধিদপ্তর ঘটনার সত্যতার প্রমাণ পেলে অভিযুক্ত প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা প্রদানের আদেশ দেবে। এ ছাড়া জরিমানা ছাড়াও ব্যবসার লাইসেন্স বাতিল, ব্যবসায়িক কার্যক্রম সাময়িক বা স্থায়ীভাবে স্থগিতও করতে পারে অধিদপ্তর। যেসব জেলায় অধিদপ্তরের শাখা নেই, সেসব জেলায় এই আইনে মহাপরিচালককে যে ক্ষমতা দেওয়া আছে, তা জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের ওপর ন্যস্ত রয়েছে।

অধিদপ্তর অভিযোগটি গুরুতর মনে করলে অভিযোগ দায়েরের ৯০ দিনের মধ্যে অভিযোগপত্র প্রথম শ্রেণির ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে দাখিল করতে পারে। ম্যাজিস্ট্রেটের রায় বা আদেশের বিরুদ্ধে ৬০ দিনের মধ্যে দায়রা জজের আদালতে আপিল করা যাবে। ভোক্তার ক্ষতি যদি আর্থিক মূল্যে নিরূপণযোগ্য হয়, তবে ক্ষতিপূরণ দাবি করেও যুগ্ম জেলা জজ আদালতে মামলা করার সুযোগ আছে। আদালত ক্ষতিপূরণ প্রদান ছাড়াও পণ্যের প্রতিস্থাপন বা ফেরত দিয়ে পণ্যের দাম ফেরত দেওয়ার নির্দেশ দিতে পারেন। ভ্রাম্যমান আদালত এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকেও বিষয়টি জানাতে পারেন।

আর অনলাইন, ফেসবুক পেজ, লোভনীয় বিজ্ঞাপন-এসব মাধ্যম থেকে কেনাকাটা করতে হলে প্রতিষ্ঠানের নাম-ঠিকানা এবং মালিকের নাম-ঠিকানায় অসামঞ্জস্য আছে কি-না ভালো করে পর্যবেক্ষণ করে নিন। ওয়েবসাইটে ট্রেড লাইসেন্সের কপি আছে কি-না, থাকলে তার নিবন্ধন নম্বর কত, বিকাশ নম্বরে মূল্য পরিশোধ করতে বললে নম্বরটি যাচাই করে নিন। আর কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে পণ্য দিতে বললে কেনার রসিদ, বিক্রয় প্রতিনিধিকে সরাসরি মূল্য পরিশোধ, ওয়েবসাইট নির্ভর করা ভালো। ই-কমার্সের প্রতি মানুষের এ নির্ভরতার সুযোগ নিয়ে কিছু অসৎ চক্র গ্রাহকদের সঙ্গে প্রতারণা করছে।

যিনি উৎপাদিত পণ্য ও সেবা চূড়ান্ত ভোগের জন্য ক্রয় করেন, অর্থনীতির ভাষায় তাকে ভোক্তা বলে। সহজ ভাষায় বলতে গেলে, যিনি কোনো পণ্য ক্রয় করেন কেবল নিজে ভোগ করার জন্য; তিনিই ভোক্তা। একজন ব্যক্তি যখন কোনো পণ্য ক্রয় করেন, তখন তার জানার অধিকার রয়েছে পণ্যটি কবে উৎপাদিত হয়েছে, কোথায় উৎপাদিত হয়েছে এবং এর কাঁচামাল কী কী, মূল্য কত ইত্যাদি। এসব প্রশ্নের উত্তর দিতে একজন বিক্রেতা বাধ্য। যদি কোনো বিক্রেতা এসব প্রশ্নের উত্তর না দেন বা দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন, তখন আইন অনুযায়ী তাতে ভোক্তা অধিকার ক্ষুন্ন হয়।

জাতিসংঘ স্বীকৃত ভোক্তা অধিকার ৮টি। এগুলো হল- মৌলিক চাহিদা পূরণের অধিকার, তথ্য পাওয়ার অধিকার, নিরাপদ পণ্য বা সেবা পাওয়ার অধিকার, পছন্দের অধিকার, জানার অধিকার, অভিযোগ করা ও প্রতিকার পাওয়ার অধিকার, ভোক্তা অধিকার ও দায়িত্ব সম্পর্কে শিক্ষা লাভের অধিকার, সুস্থ পরিবেশের অধিকার। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ অনুযায়ী বিক্রেতার পণ্যের মোড়ক ব্যবহার না করা, মূল্যতালিকা প্রদর্শন না করা, সেবার তালিকা সংরক্ষণ ও প্রদর্শন না করা, অধিক মূল্যে পণ্য বিক্রয় করা, পণ্য মজুত করা, ভেজাল পণ্য বিক্রয়, খাদ্যপণ্যে নিষিদ্ধ দ্রব্যের মিশ্রণ, অবৈধ প্রক্রিয়ায় পণ্য উৎপাদন, মিথ্যা বিজ্ঞাপন দ্বারা প্রতারণা, প্রতিশ্রুতি পণ্য সরবরাহ না করা, ওজনে ও পরিমাপে কারচুপি, দৈর্ঘ্য পরিমাপের ক্ষেত্রে গজ ফিতায় কারচুপি, নকল পণ্য প্রস্তুত, মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য বিক্রয়, অবহেলা প্রভৃতি কারণে আইনের আশ্রয় নিতে পারেন। এসব অপরাধের জন্য ১-৩ বছরের শাস্তি এবং পঞ্চাশ হাজার থেকে দুই লক্ষ টাকা পর্যন্ত জরিমানার বিধান রয়েছে।

লেখক: বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবী, আইনগ্রন্থ প্রণেতা ও সম্পাদক-প্রকাশক ‘দৈনিক ইন্টারন্যাশনাল’। Email:seraj.pramanik@gmail.com, মোবাইল: ০১৭১৬-৮৫৬৭২৮

এই সংবাদ টি সবার সাথে শেয়ার করুন




দৈনিক ইন্টারন্যাশনাল.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।  © All rights reserved © 2018 dainikinternational.com
Design & Developed BY Anamul Rasel